grub -2 রিস্টোর করা

উবুন্টু এবং উইন্ডোজ ডুয়েলবুট থাক অবস্থায় নতুন করে উইন্ডোজ ইনস্টল করা হলে কম্পিউটার চালু হওয়ার সময় অপারেটিং সিস্টেম নির্বাচনের অপশনটি থাকে না । সাধারণবাবে উইন্ডোজ অপারেটইং সিস্টেম ছাড়া অন্য কোন অপারেটিং সিস্টেমকে চিনতে পারে না । ফলে নতুন করে ইনস্টল করা হলে সেটি ইনস্টল করা থাকলেও অন্য অপারেটিং সিস্টেমগুলিকে খুজে পায় না। ফলে অপারেটিং সিস্টেম নির্বাচন করার অপশন ছাড়াই কম্পিউটার চালু হয়। ইনস্টল করা উবুন্টু মেনুতে ফিরিয়ে আনতে নিচের পদ্ধতি অনুসরণ করুন। এই পদ্ধতিতে গ্রাব ২ রিস্টোর করা যাবে।

১. লাইভ সিডি বা ইউএসবি ব্যবহার করে উবুন্টু চালু করুন।
২. যে ড্রাইভে উবুন্টু ইনস্টল করা আছে শুধুমাত্র সেই ড্রাইভটি ওপেন করুন। উপরের টুলবার থেকে Places >> Computer  থেকে এই কাজটি করা যাবে।
৩. এবার অ্যাপলিকেশন মেনু থেকে টারমিনাল (Applications >> Accessories >> Terminal) চালু করুন এবং টারমিনালে নিচের কমান্ডটি ব্যবহার করুন।

ls /media

৪. কমান্ডটি ব্যবহার করা হলে উবুন্টু পার্টিশনটির নাম দেখাবে। এই নামগুলি সাধারণত বিশাল আকারের একটি নম্বর দিয়ে প্রকাশ করা হয়। এবার নিচের কমান্ডটি ব্যবহার করা হলে বুট লোডার নতুন করে ইনস্টল হবে।

sudo grub-install –root-directory=/media/0aaf0473-9b39-451b-a3d2-efd1014f0ccc /dev/sda

উপরের কমান্ডে media/ এর পরে যে নম্বরটি লেখা হয়েছে সেটি উবুন্টু পার্টিশনের নম্বর। অন্য ব্যবহারকারীর ক্ষেত্রে এটি আলাদা হবে। এই নামটি লিখতে media/ এর পর কীবোর্ড থেকে Tab বাটন চাপুন তাহলেই সম্পূর্ণ নামটি লেখা হয়ে যাবে। লেখার সময় ভুল এড়াতে এখান থেকে সরাসরি কপি করে পেস্ট করতে পারেন।


সঠিকভাবে রিস্টোর সম্পন্ন হলে নিচের মত একটি বার্তা দেখানো হবে। এরপর কম্পিউটার রিস্টার্ট করে স্বাভাবিক ভাবে আবার চালু করতে হবে।
“Installation finished. No error reported. …………….”

উবুন্টুতে সফটওয়্যার ডাউনলোড এবং ইনস্টল করা

উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহারকরীরা .exe বা .msi এক্সটেনশন সহ ফাইল ইনস্টল করতে অভ্যস্ত। উইন্ডোজের উপযোগী কোন সফটওয়্যার ইনস্টল করতে হলে সাধারণত সফটওয়্যারটির ডেভলপার সাইট থেকে ডাউনলোড করতে হয় । তবে উবুন্টু লিনাক্সে সফটওয়্যার ইনস্টল করার পদ্ধতিটি বেশ সহজ। উবুন্টুতে ইনস্টল করার উপযোগী প্রায় সকল সফটওয়্যারের সমন্বয়ে একটি সফটওয়্যার রিপোজিটরী তৈরী করা হয়েছে। সেখান থেকে পছন্দমত সপটওয়্যঅর ইনস্টল করা যাবে । যদিও সফটওয়্যার ইনস্টল করার এটিই একমাত্র পদ্ধতি নয়। টারমিনাল, ওয়েব ব্রাউজার ও প্যাকেজ ম্যানেজারের মাধ্যমেও উবুন্টুতে সফটওয়্যার ইনস্টল করা যায়। তবে উইন্ডোজ সফটওয়্যারের সাথে লিনাক্স সফটওয়্যারের একটি বড় ধরনের পার্থক্য রয়েছে। সাধারণত লিনাক্সের বড় আকারের সফটওয়্যারগুলি  একাধিক প্যাকেজে বিভক্ত করা থাকে। মূল সফটওয়্যার প্যাকেজটি ইনস্টল করার পূর্বে অন্যান্য প্যাকেজগুলি ইনস্টল করা থাকতে হয়। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় একাধিক সফটওয়্যার একটি প্যাকেজ ব্যবহার করে ।  তখন ঔ প্যাকেজটি আর পুনরায় ইনস্টল করতে হয় না।


উবুন্টুতে সফটওয়্যার ইনস্টল করতে হলে কোন প্যাকেজ আগে ইনস্টল করতে হবে আর কোনটি পরে এটি আপনাকে জানতে হবে না । যেই পদ্ধতিতেই ইনস্টল করুননা কেন বিস্তারিত পড়ুন

gcc compiler

GCC (GNU Compiler Collection) অনেকগুলা কম্পাইলারের সমন্বয়ে তৈরী একটি কম্পাইলার যার মাধ্যমে C, C++, Fortran, Java, Ada এর বেশ কয়েকটি প্রোগ্রামিং ভাষার সোর্সকোড কম্পাইল করা যায়। GNU Toolchain এর অন্যতম প্রধান অংশ হল GCC . GNU সিস্টেমের অফিসিয়াল এই কম্পাইলারটির নাম ছিল GNU C Compiler কারন এটি ১৯৮৭ সালে যখন এটি তৈরী করা হয় তখন এটি কেবল C প্রোগ্রামিং ভাষার জন্যই ব্যাবহার করা হত। পরবর্তীতে এটিকে C++, Objective C, Objective C++, Fortran, Pascal, Java, Ada ইত্যাদি প্রোগ্রামিং ভাষার উপযোগি করে তৈরী করা হয়। তাছাড়া Modula-2, Modula-3, Pascal, PL/I, D, Mercury, VHDL ইত্যাদির জন্যও এটি ব্যাবহার করা যাবে। GCC কোড গুলা ডিবাগ করার জন্যGNU Debugger ব্যাবহার করা হয়।


কিছু হেডার ফাইল সহ আরও কিছু দরকারী ফাইল ইনস্টল করতে হবে এই কাজ গুলা ঠিক ভাবে করার জন্য। ফাইল গুলা ইনস্টল করার জন্য Terminal ওপেন করে লিখতে বিস্তারিত পড়ুন

Twidge, কমান্ড লাইন Twitter ক্লায়েন্ট

twitterTwidge একটি টুইটার ডেক্সটপ ক্লায়েন্ট। এটি লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেমের উপযোগী এবং এটির বিশেষত্ব হল এটি কমান্ড লাইন থেকে ব্যবহার করতে হয়। কমান্ড লাইন থেকে ব্যবহার করতে হয় বলে এটি অনেক কম মেমরী ব্যবহার করে চালানো যায়। ওয়েবের টুইটারের সবগুলি সুবিধা এখানে ব্যবহার করা যায়।


Twidge
টুইটার ক্লায়েন্টের কিছু বৈশিষ্ট নিচে উল্লেখ করা হল

  • এটির ব্যবহার পদ্ধতি অনেক সহজ করা হয়েছে এবং সেই সাথে মূল টুইটারের সব বৈশিষ্ট রাখা হয়েছে।
  • টুইটারের এপিআই ব্যবহার করে এমন সকল মাইক্রোব্লগিং সাইটের ক্ষেত্রে এটি কাজ করবে
  • tinyurl.com ব্যবহার করে বড় আকারেরওয়েবসাইটের ঠিকান ছোট করে বিস্তারিত পড়ুন

টারমিনাল টুইক

টারমিনাল বা কমান্ড প্রম্পট অভিজ্ঞ ব্যবহারকরীদের জন্য খুবই প্রয়োজনীয় এবং পছন্দের অ্যাপলিকেশন। যদিও নতুন ব্যবহারকরীরা এটি অনেকটাই ভয়ের জায়গা বলে মনে করেন। সাধারণভাবে এটি নিতান্তই একটি রসকসহীন একটি জায়গা যেখানে একটি কালো উইন্ডোতে শুধু লিখে যেতে হয় যার বিপরীতে আরও নতুন কিছু লেখা এসে হাজির হয় উইন্ডোতে।
তবে এটি এতটা বিরক্তিকর নয়। এবং এটি প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্নভাবে সাজিয়ে নেয়া যায়। এখনকার টারমিনাল গুলিতে এমনিতেই বিভিন্ন কাস্টমাইজেশনের সুবিধা দেয়া থাকে এর বাইরে বিশেষ কিছু অপশন দেখানো হচ্ছে।

নিচের এই পরিবর্তনগুলি আপনার টারমিনালে দেখতে চাইলে PS1= দিয়ে শুরু হওয়া লাইনগুলি সরাসরি কপি করে টারমিনালে পেস্ট করে দিন এবং স্থায়ীভাবে ব্যবহার করতে চাইলে ~/.bashrc ফাইলের শেষে লাইনটি যুক্ত করে দিন।

১.
এটি অন্যতম মজার টুইকগুলির একটি। টারমিনালে যতক্ষন সঠিক কমান্ড প্রয়োগ করা হবে ততক্ষন এটি একটি খুশি চেহারা দেখাবে কিন্তু যদি ভুল কমান্ড ব্যবহার করা হয় তবে এটি দুঃখী চেহারা দেখাবে।
কোড:

PS1=”\`if [ \$? = 0 ]; then echo \[\e[33m\]^_^\[\e[0m\]; else echo \[\e[31m\]O_O\[\e[0m\]; fi\`[\u@\h:\w]\\$ “

২.
এটি চালু থাকা অবস্থায় যদি কোন ভুল কমান্ড ব্যবহার করা হয় তে এটি কমান্ড প্রম্পটের রং পরিবর্তন করে বিস্তারিত পড়ুন