ফেসবুক পেজ ভেরিফিকেশন আসলে কী

prothom alo facebook pageফেসবুক ভেরিফায়েড পেজের কথা প্রায়ই শোনা যায়৷ এই ফেসবুক ভেরিফিকেশন নিশ্চিত করে দেয়, যাঁর নামে ফেসবুক ফ্যানপেজ রয়েছে, পেজটি আসলে তাঁরই৷ ফেসবুক ভেরিফিকেশন আসলে কী? ভেরিফায়েড করানোর উপায়ই বা কী?

নিয়মিত যোগাযোগের জন্য ফেসবুক প্রোফাইল ব্যবহার করেন-এমন ব্যবহারকারীর সংখ্যাও প্রচুর৷ আবার বিখ্যাত লোকেরা যোগাযোগের জন্য ব্যক্তিগত প্রোফাইলের চেয়ে ফেসবুক পেজ ব্যবহারে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন৷ প্রতিষ্ঠান, ব্র্যান্ড, অনুষ্ঠান ও কার্যক্রম সম্পর্কে জানানোর জন্যও ফেসবুক পেজ তৈরি করা হয়ে থাকে৷

ফেসবুক সবার জন্য উন্মুক্ত, যে কেউ ইচ্ছা করলেই তাঁর নিজের প্রোফাইল ও পেজ তৈরি করতে পারেন৷ একই সঙ্গে ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের পরিচয়পত্র উল্লেখ করার প্রয়োজনীয়তা নেই বলে একজন ব্যক্তি অন্য কারও নামেও অ্যাকাউন্ট ​তৈরি করতে পারেন৷ এমনকি অন্য প্রতিষ্ঠানের নামে ফেসবুক পেজ তৈরি করে নিয়মিত হালনাগাদও করা যায়৷ বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান অথবা ব্যক্তির নামে এমন ভুয়া অ্যাকাউন্ট বা পেজ থেকে প্রচারণা চালানো হলে ওই ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের জন্য সেটি ক্ষতির কারণও হতে পারে৷ মিথ্যা বা ফেক অ্যাকাউন্ট থেকে মূল অ্যাকাউন্ট আলাদা করে দেখানোর জন্য ফেসবুকের একটি নিজস্ব ভেরিফিকেশন পদ্ধতি রয়েছে৷ ​এই ভেরিফিকেশনে উত্তীর্ণ পাতাগুলোর নামের পাশে নীল রঙের একটি টিক চিহ্ন থাকে৷ পেজের পাশাপাশি ফেসবুক প্রোফাইলও একইভাবে ভেরিফায়েড হতে পারে৷ সাধারণত তারকাখ্যাতি-সম্পন্ন ব্যক্তি, সেলিব্রিটি, সাংবাদিক, সরকারি কর্মকর্তা, জনপ্রিয় প্রতিষ্ঠান ও ব্র্যান্ডের পাতাগুলো ভেরিফাই করে থাকে ফেসবুক৷

ফেসবুক প্রোফাইল বা পেজ ভেরিফাই করার জন্য নির্দিষ্ট কোনো নিয়ম উল্লেখ করা নেই; আবার ফেসবুকের কাছে ভেরিফিকেশনের জন্য সরাসরি আবেদন করার জন্যও কোনো যোগাযোগের পদ্ধতি নেই৷ ফেসবুকের পক্ষ থেকে বলা হয়, তারা প্রোফাইল ও পেজে যে ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের উল্লেখ রয়েছে, সেটি সত্যিই ওই ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কি না, সেটি নিশ্চিত করার জন্যই এই ভেরিফিকেশন৷ ফেসবুক পর্যায়ক্রমে নির্ধারিত বিষয়ের পাতাগুলো ভেরিফিকেশনের কাজ করছে৷

সাদা–নীল টিক চিহ্ন পেতে যে পদ্ধতিগুলো প্রচলিত—

# ফেসবুক প্রোফাইল বা পেজে অফিশিয়াল ওয়েবসাইট যোগ করা এবং ওয়েবসাইটে প্রোফাইল বা পেজের লিংক রাখা৷

# প্রোফাই​েল অফিশিয়াল ওয়েবসাইটের ডোমেইনের ই-মেইল ঠিকানা যোগ করা, ই-মেইল ভেরিফাই করা৷

# পেজের প্রশাসক বা অ্যাডমিন হলে তার অফিশিয়াল ওয়েবসাইটের ডোমেইনের ই-মেইল ফেসবুকে যুক্ত রাখা৷

# ‘অ্যাবাউট বা পরিচিতি’ অংশটি সম্পূর্ণভাবে পূরণ করা৷

এই ধাপগুলো অনুসরণ করার সঙ্গে সঙ্গেই যে প্রোফাইল বা পেজে ​ভেরিফায়েড হয়ে যাবে, এমন নয়৷ কিন্তু এই তথ্যগুলো দিলে অন্যান্য সাধারণ ব্যবহারকারীও পেজের মালিক বা যিনি পরিচালনা করছেন, সেই বিষয়ে নিশ্চিত হতে পারবেন৷

First published at Prothom Alo, March 28, 2014

http://www.prothom-alo.com/technology/article/179032/

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s