উইকিপিডিয়ার মহাসম্মেলনে

উইকিপিডিয়া, বর্তমান সময়ে ইন্টারনেটে সব চেয়ে জনপ্রিয় পাঁচটি ওয়েবসাইটের একটি। দৈনন্দিন কাজে প্রয়োজনীয় সব বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য রয়েছে এই ওয়েবভিত্তিক বিশ্বকোষে।ইন্টারনেটে বিনা মূল্যে ব্যবহার করা যায় উইকিপিডিয়া (www.wikipedia.org)। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের হাজার হাজার স্বেচ্ছাসেবকের পরিশ্রমে গড়ে ওঠা এই বিশ্বকোষে সব বিষয়ের তথ্য খুব সহজেই খুঁজে পাওয়া যায়। সবার ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অবদান থেকেই গড়ে উঠেছে এই বিশাল আকারের উইকিপিডিয়া। উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশন নামে একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান উইকিপিডিয়া এবং এর সহপ্রকল্পগুলো পরিচালনা করে থাকে। ব্যবহারকারীদের কাজে অনুপ্রেরণা দেওয়া এবং স্বেচ্ছাসেবকদের সরাসরি আলোচনার মাধ্যমে উইকিমিডিয়ার কার্যক্রম সঠিকভাবে এগিয়ে নেওয়ার জন্য উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশন ছয় বছর ধরে বিভিন্ন ভাষার উইকি প্রকল্পগুলোর স্বেচ্ছাসেবকদের (উইকিপিডিয়ান) নিয়ে বার্ষিক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন করে আসছে।
‘মুক্তির শহরে মুক্ত জ্ঞান’ (ফ্রি নলেজ ইন দ্য সিটি অব ফ্রিডম) স্লোগান নিয়ে চলতি বছর ‘উইকিম্যানিয়া ২০১০’ নামের এই আন্তর্জাতিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলো পোল্যান্ডের গ্দানস্ক শহরে। ৯ থেকে ১১ জুলাই—তিন দিনের উইকিম্যানিয়ায় বিভিন্ন দেশ থেকে বিপুলসংখ্যক উইকিপিডিয়ান অংশ নিয়েছেন। বাংলাদেশ থেকে বেলায়েত হোসেন এবং আমি এবারের উইকিম্যানিয়ায় অংশগ্রহণ করি।বেলায়েত হোসেন এর আগেও এ সম্মেলনে গিয়েছিলেন।
সম্মেলনের মূল অনুষ্ঠানস্থল ছিল গ্দানস্ক শহরের পোলিশ বাল্টিক হারমোনিয়া। প্রতিদিন সেমিনার, কর্মশালা ও আলোচনা অনুষ্ঠানগুলো চারটি ভাগে অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম দিন আয়োজক দলের সভাপতি মার্চিন চেশলার সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। আগামী বছরগুলোতে উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশন যেসব কার্যক্রম চালু করবে এবং বর্তমানে চলছে এমন প্রকল্পগুলো কার্যকরভাবে পরিচালনার জন্য যেসব পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, সেগুলো বর্ণনা করেন উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী স্যু গার্ডনার। এরপর উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্যরা উপস্থিত উইকিপিডিয়ানদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। এ সময় উইকিপিডিয়ার প্রতিষ্ঠাতা জিমি ওয়েলসসহ বোর্ডের সব সদস্য উপস্থিত ছিলেন।
প্রতিদিন পাঁচটি সেশনে মোট ২০টি করে সেমিনার, ওয়ার্কশপ ও আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। চারটি আলাদা মিলনায়তনে একই সঙ্গে চলছে এই সেমিনারগুলো। উইকিপিডিয়ানরা বিভিন্ন সময়ে বেশ কিছু অনানুষ্ঠানিক আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন।
ইন্টারনেট ছাড়াই অফলাইনে কী কী পদ্ধতিতে উইকিপিডিয়া ব্যবহার করা যায়, সে বিষয়ে সম্মেলনের প্রথম ও দ্বিতীয় দিনে মোট তিনটি কর্মশালার আয়োজন করা হয়। উইকিপিডিয়ায় ছবি, অডিও-ভিডিও ফাইল সংযোজন ও ব্যবস্থাপনার পদ্ধতি; শিক্ষা খাতে উইকিপিডিয়া ব্যবহার করার বিভিন্ন সুবিধা এবং দিকনির্দেশনা-সম্পর্কিত সেমিনার হয়েছে প্রথম দিনে। দ্বিতীয় দিনের সেমিনারগুলোর মধ্যে অন্যতম ছিল ‘সকল উইকিপিডিয়া সমান নয়’। বাংলা উইকিপিডিয়াসহ (http://bn.wikipedia.org/) বর্তমানে মোট ২৭০টি ভাষায় উইকিপিডিয়া চালু রয়েছে। সব উইকিপিডিয়ার নিবন্ধ এবং ব্যবহারকারীর সংখ্যা বা জনপ্রিয়তা সমান নয়। তাই সব উইকিপিডিয়ায় একই ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করা সমান কার্যকর হবে না। উদাহরণ হিসেবে ইংরেজি ও বাংলা উইকিপিডিয়ার কথা বলা যেতে পারে। ইংরেজি উইকিপিডিয়া পৃথিবীর সবচেয়ে সমৃদ্ধ বিশ্বকোষ। সেই তুলনায় বাংলা উইকিপিডিয়া ছোট আকারের।
আলোচনায় বলা হয় ছোট আকারের উইকিপিডিয়ার নিবন্ধগুলো তৈরি করা উচিত নির্দিষ্ট ভাষার ব্যবহারকারীর চাহিদা ও প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী। সেই সঙ্গে প্রচার কার্যক্রম পরিচালনার ধরনও হবে আলাদা। এ ছাড়া উইকিপিডিয়ানদের পারস্পরিক যোগাযোগের পদ্ধতি, মিডিয়াউইকি সফটওয়্যার এবং উইকিপিডিয়ায় ভিডিও ফাইল ব্যবহারের পদ্ধতি নিয়ে একাধিক সেমিনার ও আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারগুলোতে মিডিয়াউইকি সফটওয়্যারটির বিভিন্ন ভাষায় স্থানীয়করণের প্রতি জোর দেওয়া হয়। উইকিপিডিয়ার প্রচার, প্রসার এবং এখানে তথ্য সমৃদ্ধকরণে স্থানীয় সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, গ্রন্থাগার ও জাদুঘরগুলো বিশেষভাবে সহায়তা করতে পারে বলে জানিয়েছেন বিভিন্ন দেশ থেকে আসা উইকিপিডিয়ানরা। কয়েকটি দেশে সরকারি জাদুঘরগুলো স্থানীয় উইকিপিডিয়ানদের সঙ্গে যোগাযোগ করে সেখানে রক্ষিত নিদর্শনগুলো মুক্ত লাইসেন্সের অধীনে উইকিপিডিয়ায় প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশে এ ধরনের উদ্যোগের ফলে বাংলাদেশের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি বিশ্বের দরবারে পরিচিতি পেতে পারে।
এ ছাড়া এদিন উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশনের তহবিল সংগ্রহের উদ্দেশ্যে নির্মিত এক ভিডিওচিত্রে বাংলা উইকিপিডিয়ার পক্ষ থেকেও অংশ নেওয়া হয়।
সম্মেলনের তৃতীয় দিনে যান্ত্রিক অনুবাদক (মেশিন ট্রান্সলেটর) ব্যবহার করে উইকিপিডিয়ায় নিবন্ধ তৈরি করার বিষয় নিয়ে তিনটি আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে গুগলের পক্ষে থেকে তাদের সাম্প্রতিক চালু করা গুগল ট্রান্সলেশন টুল কিট ব্যবহার, উন্নয়ন এবং এর মাধ্যমে উইকিপিডিয়ায় তাদের অবদানের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করা হয়। এ সময় গুগুলের প্রতিনিধি জানান, ভারত উপমহাদেশের অনেক ভাষার উইকিপিডিয়া তাদের অনূদিত নিবন্ধগুলো গ্রহণ করলেও বাংলা উইকিপিডিয়া তাঁদের উইকিতে দেওয়া নিবন্ধগুলো গ্রহণ করেনি। সে সময় উপস্থিত বাংলা উইকিপিডিয়ানরা এই প্রকল্পের বিভিন্ন সমস্যা ও ত্রুটি তুলে ধরেন এবং তামিল উইকিপিডিয়ার পক্ষ থেকে তুলে ধরা এর নেতিবাচক দিকগুলোকে সমর্থন জানান। গুগল জানায়, আপাতত বাংলা উইকিপিডিয়ায় নতুন নিবন্ধ সংযোজন এবং গুগল ট্রান্সলেশন টুল কিটে বাংলা শব্দ সংযোজন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আলোচনা শেষে নিউইয়র্ক টাইমস-এর সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে বাংলা উইকিপিডিয়ার প্রশাসক বেলায়েত হোসেন বলেন, গুগল তাদের সফটওয়্যার উন্নয়নের জন্য এ ধরনের ছোট উইকিপিডিয়াগুলোতে পরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু উইকিপিডিয়া কোনো প্রকল্পের পরীক্ষা চালানোর স্থান নয়। ভুল ও নিচুমানের অনুবাদে করা নিবন্ধগুলো উইকিপিডিয়ায় নিবন্ধসংখ্যা বাড়ায় ঠিকই, কিন্তু এগুলো পড়ে স্থানীয় পাঠকেরা ওই উইকিপিডিয়া সম্পর্কে খারাপ ধারণা নিয়ে হতাশ হয়ে ফিরে যান। তাই বাংলা উইকিপিডিয়া সম্প্রদায় তাদের অনুবাদ করা নিবন্ধগুলো গ্রহণ না করে মুছে দিয়েছে। উইকিপিডিয়ার মূল লক্ষ্য অক্ষুণ্ন রেখে পরিচালনার এই পদ্ধতি প্রশংসিত হয়েছে নিউইয়র্ক টাইমস ও কলকাতার ডেইলি টেলিগ্রাফসহ বেশ কিছু পত্রপত্রিকায়।
সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গ্দানস্ক শহরের মেয়র। তিনি জানান, এই সম্মেলন আয়োজনে পোল্যান্ডের ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রত্যক্ষভাবে সহযোগিতা করেন এবং প্রযুক্ত ও সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকেও বিশেষভাবে সহযোগিতা করা হয়।
এসব আলোচনা ও গুরুগম্ভীর আলোচনায় উষ্ণতা এনে দিতেই সম্মেলনের প্রথম দিন আয়োজন করা হয়েছিল সিম্ফোনি কনসার্টের এবং দ্বিতীয় দিনে আয়োজন করা হয় উইকিপিডিয়া, উইকিপিডিয়ান এবং পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে মুক্ত জ্ঞানাধারের প্রয়োজনীয়তার ওপর নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র ট্রুথ ইন নাম্বারস-এর উদ্বোধনী প্রদর্শনীর। ওয়েবসাইটে তা সরাসরি দেখানোও হয়।
বাংলাদেশ, বাংলা ভাষা, বাংলাদেশের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি টিকিয়ে রাখতে এবং বিশ্বের সামনে তুলে ধরতে উইকিপিডিয়া বিশেষভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। দেশ বা দেশের বাইরে অবস্থান করছেন এমন যে কেউ উইকিপিডিয়ায় অবদান রাখতে পারেন, পৃথিবীর সবার সামনে তুলে ধরতে পারেন নিজের মাতৃভূমিকে।

http://www.prothom-alo.com/detail/date/2010-07-23/news/80847

উবুন্টুতে বাংলা লেখার বিভিন্ন পদ্ধতি

উবুন্টুতে বাংলা লেখার কীবোর্ড লেআউট ইনস্টলের সময়ই দেয়া থাকে। সাধারণ পদ্ধতিতে লেআট যুক্ত করা ছাড়াও সম্প্রতি IBus নামে কীবোর্ড লেআউট যুক্ত করার নতুন একটি পদ্ধতি যুক্ত করা হয়েছে। বাংলা কীবোর্ড লেআউট যুক্ত করার পদ্ধতি এবং লেআউট পরিবর্তন করার জন্য সর্টকাট কী চালু করার পদ্ধতি নিচে দেখানো হল।

সাধারণ পদ্ধতি

লেআউট পরিবর্তনের সর্টকাট তৈরী

IBus ইনপুট পদ্ধতি ব্যবহার

সাধারণ পদ্ধতি

উবুন্টুতে বাংলায় লিখতে চাইলে প্রথমে বাংলা কী-বোর্ড অ্যাড করে নিতে হবে।প্যানেল থেকে System >> Preferences >> Keyboard এ ক্লিক করুন। যে Keyboard Preferences উইন্ডো আসবে তার Layouts ট্যাব-এ ক্লিক করলে নিচের উইন্ডোটি দেখা যাবে। বিস্তারিত পড়ুন

উইকিম্যানিয়া ২০১০, গিদানস্ক, পোল্যান্ড

পোল্যান্ডের গিদানস্ক শহরে গতকাল ৯ জুলাই থেকে শুরু হয়েছে উইকিপিডিয়ার স্বেচ্ছাসেবকদের বার্ষিক আর্ন্তজাতিক সম্মেলন উইকিম্যানিয়া ২০১০ (http://wikimania2010.wikimedia.org)। প্রতিবছর স্থানীয় আয়োজকদের সহযোগিতায় উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশন উইকিম্যানিয়া আয়োজন করে থাকে।এই অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহন করেছে পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত বিভিন্ন ভাষার উইকিপিডিয়া, উইকিবুক, উইকিমিডিয়া কমন্স সহ উইকিপিডিয়ার অন্যান্য সহ প্রকল্পের স্বেচ্ছাসেবকগণ। বাংলাদেশ থেকে পক্ষ এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রণ করছে বেলায়েত হোসেন এবং নাসির খান সৈকত। উইকিপিডিয়া হল একটি মুক্ত বিশ্বকোষ যেটি যে কেউ বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারে, এমনকি উইকিপিডিয়ার সম্পাদনার কাজটিও করতে পারবেন যেকোন ইন্টারনেট ব্যবহারকরী। বাংলা উইকিপিডিয়ার ঠিকানা হল http://bn.wikipedia.org

পোলিশ বাল্টিক হারমোনিয়াতে শুরু হওয়া এই সম্মেলন আগামি ১১ জুলাই পর্যন্ত চলবে।  প্রতিদিনের অনুষ্ঠান সমূহ তিনটি সেশনে ভাগ করা হয়েছে ।  এই প্রতিটি সেশনে তিনটি করে সেমিনার ও ওয়ার্কশপ আয়োজন করা হয়। সকাল ৯টার সময় স্থানীয় আয়োজক দলের সভাপতি মারচিন চেশলার অনুষ্ঠানের উদ্বোধন ঘোষনা করেন। পরবর্তী বছরগুলিতে উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশন কি কি পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে সেববিষয়ে বিস্তারিত বর্ননা করেন উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী স্যু গার্ডনার এবং এর পরপরই উইকিমিডিয়া বোর্ড অব ট্রাস্টিজ উইকিমিডিয়ার বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পর্কে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। এই প্যানেলে উইকিমিডিয়ার প্রতিষ্ঠাতা জিমি ওয়েলস্ সহ বোর্ডের অন্যান্য সকল সদস্য উপস্থিত ছিলেন। দিনের অন্যান্য সেশনগুলিতে উইকিমিডিয়া এশিয়া প্রকল্প, অফলাইন উইকিপিডিয়া সহ আরও ৮টি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

googlecl: গুগলের সেবা ব্যবহার করুন কমান্ড লাইন থেকে

কম্পিউটার প্রোগ্রাম বা সফটওয়্যারের আকর্ষণীয় চেহারা (ইন্টারফেস) বা বড় আকারের বোতাম, আইকন সাধারণ বা নতুন ব্যবহারকারীদের জন্য সুবিধাজনক। কিন্তু অনেক দক্ষ কম্পিউটার ব্যবহারকারীই এই ধরনের ইন্টারফেসের চেয়ে লিখিত নির্দেশ (কমান্ড লাইন) দিয়ে কাজ করতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। এই ধরনের ব্যবহারকারীদের জন্য গুগল সিএলবা গুগল কমান্ডলাইন চালু করা হয়েছে।

এই নির্দিষ্ট সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে গুগল পরিচালিত ব্লগার, পিকাসা ওয়েব অ্যালবাম, ইউটিউব, গুগল ডক এবং গুগল ক্যালেন্ডারের মতো প্রোগ্রাম কমান্ডলাইন থেকে ব্যবহার করা যাবে। পাইথন প্রোগ্রামিং ভাষায় তৈরি এ সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হলে প্রথমে কম্পিউটারে পাইথন ২.৫ অথবা ২.৬ এবং gdata-python-client এবং googlecl ইনস্টল করতে হবে। এ প্রোগ্রামগুলো www.python.org/downloadhttp://code.google.com/p/gdata-python-clienthttp://code.google.com/p/googlecl ঠিকানার ওয়েবসাইটগুলোতে বিস্তারিত পড়ুন