অ্যাপেলের আইপ্যাড

কিছু দিন পরপরই নতুন ধরনের প্রযুক্তি পণ্য নিয়ে বিশ্ববাসীর সামনে হাজির হয় অ্যাপল ইনকরপোরেটেড প্রতিষ্ঠানটি। আইপ্যাড এই ধারাবাহিকতার সবর্বশেষ পণ্য। সব জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে গত সপ্তাহে এ্যাপল পরিচয় করিয়ে দিল তাদের নতুন এই ট্যাবলেট কম্পিউটারের সাথে । আইপ্যাড নামের এই যন্ত্রটির প্রচলিত ল্যাপটপ বা স্মার্ট ফোন থেকে উন্নততর প্রযুক্তি ব্যবহার করে তৈরী করা হয়েছে বলে জানানো হয়। যুক্তরাষ্ট্রের স্যানফ্রান্সিসকোতে অ্যাপল কম্পিউটার ইনকরপোরেটেডের প্রধান নির্বাহী স্টিভ জবস বিশ্বকে পরিচয় করিয়ে দেন বহু প্রত্যাশিত, বহুল আলোচিত এই ট্যাবলেট কম্পিউটারটিকে। স্টিভ জবস জানান অ্যাপলের তৈরী আইপ্যাড স্মার্টফোনের চেয়েও বেশি কিছু, আবার পূর্ণাঙ্গ ল্যাপটপ কম্পিউটারও নয় এটি। দৈনন্দিন কাজগুলি সহজ ভাবে করার উপযোগী করে তৈরী করা হয়েছে এই আইপ্যাডকে।

বৈশিষ্টসমূহ

.৫৬ ইঞ্চি X .৪৭ ইঞ্চি X .৫ ইঞ্চি আকারের আইপ্যাড দেখতে অনেকটা এ্যাপলের আইফোনের মতই, পার্থক্য কেবল আকারে। তবে আকারে বড় হওয়ার সাথে অনেক নতুন বৈশিষ্ট যুক্ত করা হয়েছে এখানে। এর মাল্টিটাচ স্ক্রীনের মাধ্যমেই করা যাবে সব ধরনের কাজ। সেই সাথে রয়েছে আলাদা কীবোর্ড যুক্ত করার সুবিধা। ১৬, ৩২ এবং ৬৪ গিগাবাইটের ফ্ল্যাশ মেমরী যুক্ত আইপ্যাড বাজারজাত করা হবে। বিল্টইন ওয়াইফাই এবং ব্লুটুথ কানেকটিভিটি রয়েছে এখানে। বিশেষ সংস্করণটিতে ওয়াইফাই এর সাথে পাওয়া যাবে থ্রিজি সুবিধা। আইপ্যাড এর ব্যাটারী সম্পূর্ণরূপে একবার চার্জ করা হলে একটানা ১০ ঘন্টা কাজ করা যাবে আর অব্যবহৃত অবস্থায় রেখে দিলে চার্জ থাকবে প্রায় ১মাস। ১গিগাহার্জ এ্যাপল A4 custom-designed, high-performance, low-power system-on-a-chip প্রসেসর হিসাবে ব্যবহার করা হয়েছে এখানে। Accelerometer এবং Ambient light sensor এর মাধ্যমে পরিচালিত হয় মাল্টিটাচ ইন্টারফেস। সবধরনের অডিও ভিডিও ফাইল চালানোর উপযোগী বিল্টইন স্পীকার দেয়া আছে এখানে। তবে এতসব যন্ত্রাংশ সম্বলিত এই আইপ্যাডের ওজন মাত্র দেড় পাউন্ড।

কী কী কাজ করা যাবে এটি ব্যবহার করে

সাধারণভাবে দরকার হতে পারে এমন প্রায় সব সফটও্যারই যুক্ত করে দেয়া হয়েছে এখানে। ইমেইল ব্যবহার করা জন্য দেয়া হয়েছে এটি বিশেষ অ্যাপলিকেশনটি তবে আইপ্যাডের ওয়েব ব্রাউজার সাফারি থেকেও ইমেইলের কাজগুলি করা যাবে। ছবি দেখা ও ভিডিও ফাইল চালানোর জন্য রয়েছে আলাদা আলাদা অ্যাপলিকেশন এমনকি ইউটিউবের ভিডিও দেখার জন্য দেয়া হয়েছে বিশেষ একটি অ্যাপলিকেশন। আইপড ও আইটিউনস্ অ্যাপলিকেশনও পাওয়া যাবে এখানে। সেই সাথে ম্যাপ ,ক্যালেন্ডার, নোট বা কন্টাক্ট রাখার উপযোগী অ্যাপলিকেশনতো থাকছেই।

আইপ্যাড এর আরও একটি বৈশিষ্ট হল এটি পুরোপুরি ইবুক রিডার হিসেবে ব্যবহার করা যায়। আইবুক নামের একটি অ্যাপলিকেশন রয়েছে এটিতে। পছন্দের বইগুলি যেন সহজেই খুজে পাওয়া যায় সেই জন্য আইবুক স্টোর নামের একটি অনলাইন বইএর দোকানও তৈরী করা হয়েছে । এমনকি খবরের কাগজ পড়ার জন্যও দেয়া হয়েছে বিশেষ ধরনে অ্যাপলিকেশন।

প্রাথমিকভাবে এখানে ইংরেজী, ফ্রেঞ্চ, জার্মান, জাপানিজ, পর্তুগিজ, ইতালিয়ান, স্প্যানিশ, সাধারণ চাইনিজ এবং রাশিয়ান ভাষা সমর্থন যুক্ত করা হয়েছে। এবং এই ভাষাগুলিতে লেখার জন্য বিল্টইন কীবোর্ডও দেয়া হয়েছে এখানে।

সেই সাথে আইপ্যাড স্টোর থেকে নতুন নতুন অ্যাপলিকেশন যুক্ত করার সুবিধাতো রয়েছেই। আর আইপ্যাডের প্রতিটি অ্যাপলিকেশনই এর বড় স্ক্রীনের জন্য বিশেষভাবে তৈরী করা হয়েছে।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে জবস বলেন ভিডিও দেখার জন্য এটা ল্যাপটপ কিংবা আইফোন চেয়ে সুবিধাজনক। এতে এক্সিলারোমিটার রয়েছে যা গেম কিংবা ভিডিও দেখার কাজে বেশি উপযোগি।

আইপ্যাডের জন্য অ্যাপলিকেশন তৈরী করার দিক নির্দেশন পাওয়া যাবে http://www.apple.com/ipad/sdk/ সাইটে । আইফোনের অ্যাপলিকেশন ডেভলপমেন্ট কীট ব্যবহার করেই তৈরী করা যাবে আইপ্যাডের উপযোগী অ্যাপলিকেশন।

কিভাবে পাওয়া যাবে আইপ্যাড

ওয়াইফাই সংযোগ সহ আইপডের সর্বনিম্ন মূল্য মাত্র ৪৯৯ ডলার। এই সংস্করণটিতে ১৬ গিগাবইট মেমরী কার্ড যুক্ত করা থাকবে। আরও বেশী মেমরী সম্পন্ন বা থ্রিজি কানেকটিভিটি সম্পন্ন আইপ্যাডের মূল্য কিছুটা বেশী । তবে সর্বোচ্চ সুবিধা সম্পন্ন আইপ্যাডের মূল্য ৮২৯ ডলার।

আগামী মার্চ মাসের মধ্যে এটি বিশ্বব্যাপি বাজারজাত করা শুরু হবে। তবে থ্রিজি কানেকটিভিটি সম্পন্ন আইপ্যাড গুলি কেবলমাত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং বিশেষ কিছু দেশে ব্যবহারের সুযোগ পাওয়া যাবে।

আইপ্যাড সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানা যাবে http://www.apple.com/ipad সাইটে ।

Advertisements

6 thoughts on “অ্যাপেলের আইপ্যাড

  1. আইপ্যাড অতটা ভালো লাগে নাই আমার কাছে। সাফারিতে কোন ফ্ল্যাশ সাপোর্ট নাই। তাছাড়া আইপ্যাডের জন্য আলাদা কোন ওএস ও ডেভেলপ করা হয়নাই, আইফোন/আইপডের ওএস দিয়েই এটি চলছে। আইপডের সব এপ্লিকেশন এতে চলবে। এতে মাল্টিটাস্কিংয়ের কোন সুবিধা নাই, যার মানে হচ্ছে এটা একটা বড়সর আইপড। এতে কোন ক্যামেরা নাই। শুধুমাত্র আইবুক ছাড়া আহামরি তেমন কিছু এতে নাই। এপলের A4 প্রসেসরে ক্ষমতাটার প্রায় পুরোটাই নষ্ট হবে এতে।

    • এটি বড় আকারের আইফোন এর মত । কিন্তু আইফোনের থেকে খারাপ। বিশেষ কিছু নাই। স্ক্রীনটা বড়, দেখতে ভালো লাগে। কিনলে বলতে পারবেন আমার আইপ্যাড আছে।

      তবে পিডিএফ রীডার হিসাবে চিন্তা করলে এটিতে অনেক কিছু দেয়া হয়েছে বলে মনে হবে। 😀

  2. তবে তাই যদি হয়, এটা কেনা থেকে বিরত থাকলাম, যেহেতু iphone3gS আছে এটা কেনার কোন মানে হয় না , নাসির সাহেব কি আর একটু বিস্তারিত জানাবেন, আমি কি আপনার ফোন নাম্বার পেতে পারি , আমি সিডনীতেই থাকি, কিছু মনে না করলে একটু ব্যাক্তিগত উপদেশ দেবেন কি ?

    • আপনি যেহেতু আইফোন ব্যবহার করছেন সেহেতু আইপ্যাড কেনার কোন দরকার আছে বলে মনে হয় না। এখানে এমন বিশেষ ধরনের কোন বৈশিষ্ট অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। তবে এটি আকারে বড় এটি কোন কোন ক্ষেত্রে আপনাকে বিশেষ সুবিধ দিতে পারে। তবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে আপনাকে।

  3. অনেক অনেক ধন্যবাদ,আরও কয়েকটা কথা জানার ছিল, জানিনা বিরক্ত করা হবে কি না । আমার iphone কোন মতে কি বাংলা দেখতে পাবো, মানে কোন উপায় আছে কি , আগের ফোনটা তে opera mini দিয়ে বাংলা দেখতে পেতাম , এটাতে বাংলা বর্ণ দেখি কিন্তু কেমন যেন উলটা পালটা এই ব্যাপারে একটু যদি সাহায্য করতেন,দয়াকরে।
    ==দীনো==
    ০৪৩০২০৭৫৩০ dinnody@gmail.com (জানিনা এখানে নাব্বার দেয়া কোন অপরাধ কি না )

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s